সংক্রমণে নজির বাংলায়, বাতিল শহীদ দিবসের সমাবেশ

এন ই নাও নিউজ
কলকাতা,
June 26th 2020, 10:43 pm
পশ্চিমবঙ্গে দিনে আক্রান্ত পাঁচ শতাধিক, বাতিল ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ
record-number-of-coronavirus-cases-in-west-bengal-no-rally-on-21-july-this-year
২১ জুলাই ধর্মতলার সমাবেশে মমতা

লকডাউন, সচেতনতা, রাজ্য সরকারের বিভিন্ন কড়া পদক্ষেপ- কোনও কিছুতেই থামছে না করোনার অপ্রতিরোধ্য গতি। নয়া নজির গড়ে পশ্চিমবঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত বাড়ল পাঁচ শতাধিক। কোভিডের চোখ রাঙানিতে এ’বছর ২১ জুলাই ধর্মতলায় শহীদ দিবসের সভাও বাতিল করল শাসক দল।

নবান্নের দেওয়া বিবৃতি জানায়, এক দিনে ৫৪২ জন আক্রান্ত হয়েছেন রাজ্যে। মারা গিয়েছেন ১০ জন। মোট সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা ১৬,১৬০। অবশ্য সুস্থও হয়েছেন ১০,৫৩৫ জন। অর্থাৎ সুস্থতার হার ৬৫.০৭ শতাংশ। যা জাতীয় হারের চেয়ে বেশি। পশ্চিমবঙ্গে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬১৬। 

নতুন আক্রান্তের নিরিখে রাজ্যের মধ্যে পয়লা নম্বরে কলকাতাই। আরও ১২৮ জনের নমুনায় কোভিড পজিটিভ ধরা পড়ায় শহরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫,২৬১ জন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা ও হাওড়া। উত্তরবঙ্গে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত মালদহ জেলায়।

সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রকেই দুষছেন। তাঁর দাবি, বিশেষ ট্রেন বা ঘরোয়া উড়ানের ক্ষেত্রে ঠিকমতো স্ক্রিনিং হচ্ছে না মোটেই। ফলে অন্য রাজ্য থেকে করোনা আমদানি হচ্ছে বাংলায়। বিফল হচ্ছে সরকারের সব প্রচেষ্টা। 

তৃণমূল চেয়ারপার্সন মমতা একই সঙ্গে জানিয়ে দেন, লকডাউন, সামাজিক দূরত্বের নিয়ম মানতেই হবে। এই পরিস্থিতিতে ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ বাধ্য হয়েই বাতিল করতে হচ্ছে। তিনি কথার পিঠে অন্য দলকে হুঁশিয়ার করে বলেন, “তৃণমূল যেমন নিজেদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও সর্ববৃহৎ সমাবেশ বাতিল করল, অন্য দলগুলিও যেন সেই উদাহরণ অনুসরণ করে।” রাজ্যে অতিমারির পরিবেশে অবশ্য ছোট-বড় কোনও ধরণের জমায়েতেই অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।

১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই যুব কংগ্রেসের সভায় পুলিশের গুলিচালনায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়। সেই অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন তদনীন্তন যুব কংগ্রেস সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভিক্টোরিয়া হাউসের সামনে প্রতি বছর ওই দিনে হওয়া শহীদ দিবসে তাই প্রধান বক্তা থাকেন তিনিই। অবশ্য রাস্তায় সভা না হলেও দিবস পালনের উদ্দেশে বড় করে ভার্চুয়াল সমাবেশের আয়োজন করা যায় কী না- সেই ব্যাপারে চিন্তাভাবনা চলছে দলে। 

রাজ্য সরকার জানিয়েছে, আপাতত বেসরকারি বাস-মিনিবাসের ভাড়া বাড়ানো হচ্ছে না। আগামী তিন মাস বাস মালিকদের মাসে ১৫ হাজার টাকা করে অর্থসাহায্য দেওয়া হবে। মেট্রো রেল চালু করার ব্যাপারে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। ভাবা হচ্ছে, সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে মানা গেলে ১ জুলাই থেকে মেট্রো চালানো যেতে পারে।


Related Posts

Recent News

Available at

© 2019 - Maintained by EZEN Software & Technology Pvt. Ltd