চিনা আগ্রাসন নিয়ে বহু আগেই সতর্ক করেছিলেন বিজেপি নেত্রী

এন ই নাও নিউজ
গুয়াহাটি,
June 29th 2020, 5:59 pm
কান দেয়নি সেনা বা সরকার
bjp-leader-posted-pictures-of-chinese-activities-last-year-none-paid-attention
উপরে বাঁ দিকে উরগেন, সঙ্গে তাঁর পোস্ট করা চিনা কার্যকলাপের বিভিন্ন ছবি

চিনের সেনার সঙ্গে ভারতীয় বাহিনীর হাতাহাতি হতে তখনও সাড়ে চার দিন বাকি। চিন যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতের জমি দখল করে নিয়েছে, প্যাংগং লেকের পিছনে থাকা চতুর্থ টিলা দখল করে বসেছে, দৌলত বেগ ওল্ডি বিমাঘাঁটিতে যাওয়ার রাস্তা যে লালফৌজের নজরবন্দি- সেই সব খবর তখনও দেশবাসী জানেন না।

সেই সময়, ১১ জুন বেলা ১১টায় নিজের ফেসবুক পেজে লাদাখের নিয়োমা ব্লক উন্নয়ন পরিষদের চেয়ারপার্সন তথা বিজেপি নেত্রী উরগেন চোদন পর পর কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছিলেন। স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল, কী ভাবে চিনের সেনা ভারতের ভূখণ্ডে তাদের পোস্ট তৈরি করেছে। এসেছে অনেক গাড়ি, জেসিবি। তৈরি হয়েছে রাস্তাও।

উরগেনের বাড়ি সিন্ধু নদ ঘেঁষা গ্রামে। তিব্বতি যাযাবর গোষ্ঠীর মেয়ে তিনি। সেখানকার মানুষ মূলত পশুপালক। আর সেই পশুপালনের সূত্র ধরে এক বছর আগে থেকেই তিনি ও তাঁর গোষ্ঠীর লোক দেখছেন একটু একটু করে প্যাংগংয়ের দিকে, গালওয়ান নদীর দিকে এগোচ্ছে চিনা সেনা। তাঁদের দাবি, ভারতীয় সেনাকে সতর্ক করেও লাভ হয়নি। পাত্তা দেয়নি কেউ।

১১ জুনের পোস্ট উরগেন লিখেছিলেন- গালওয়ানে চিন তাদের ঘাঁটি মজবুত করছে অনেক দিন থেকেই। কিন্তু সীমান্ত নিয়ে আমাদের মাথাব্যথা নেই। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সঠিক পরিকল্পনাও নেই। পরপর ছবি ও ভিডিও পোস্ট করে উরগেন বলতে থাকেন, এক বছরের বেশি সময় ধরে চিনা বাহিনী ভারতীয় সেনার চোখের সামনে, প্রকাশ্যে ভারতের জমি অধিগ্রহণ করে নিয়েছে। চালিয়েছে নির্মাণ। কিন্তু কোনও পদক্ষেপই করেনি ভারত।

২০১৯ সালে ভারী যন্ত্রপাতি, জেসিবি, এক্সক্যাভেটর এনে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর চিনের রাস্তা তৈরির ভিডিও আপলোড করেন তিনি। জানান, এক বছর আগেও এই ভিডিও তিনি আপলোড করেছিলেন। কিন্তু তাঁর সতর্কবার্তায় কেউ কান দেয়নি। চিন নিশ্চিন্তে নিজের ঘাঁটি মজবুত করে নেওয়ার পরেই ভারতীয় সেনাকে আক্রমণ করেছে। সেখান থেকে তাদের হঠানো কার্যত অসম্ভব।

আরও একটি পোস্টে উরগেন দেখান, চলতি বছর জানুয়ারিতে স্থানীয় পশুপালকদের ভারতের জমি থেকেই তাড়িয়ে দেয় চিনের সেনা ও তাদের সঙ্গে থাকা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কুকুর। 

গত বছর ৬ জুলাই আশপাশের গ্রামবাসীরা ভারত, তিব্বত ও বৌদ্ধ পতাকা উত্তোলন করে প্রতি বছরের মতো দলাই লামার জন্মদিন পালন করছিলেন। উরগেন জানান, সেই দিনও চিনা বাহিনী নিয়ন্ত্রণরেখার ৬ কিলোমিটার ভিতরে ঢুকে গ্রামবাসীদের হুমকি দেয়। ফুঙগাপ গ্রাম বরাবর চিনের বাহিনী গত বছর ডিসেম্বরেই সুন্দর পাকা সড়ক তৈরি করে ফেলেছিল। সেই ছবিও পোস্ট করেছিলেন উরগেন। ঘুম ভাঙেনি ভারতের। যখন ভাঙল ঘুম, এক কর্নেল-সহ ২০ জন সেনা জওয়ান প্রাণ দিয়েছেন সেখানে।


Related Posts

Recent News

Available at

© 2019 - Maintained by EZEN Software & Technology Pvt. Ltd