হাফলঙে জাতীয় প্রেস দিবস পালিত! কোভিড নিয়ে আরও সজাগ এবং সতর্ক হতে হবে : যুগ্ম সঞ্চালক ডা: বর্মণ

পঙ্কজকুমার দেব
হাফলং

Published Time

November 17, 2020, 8:30 am

Updated Time

November 17, 2020, 8:36 am
national-press-day-is-celebrated-in-haflong
বক্তব্য রাখছেন পূরবি ফংলো

সোমবার সারা দেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পার্বত্য ডিমা হাসাও জেলার জেলা সদর হাফলঙে জাতীয় প্রেস দিবস পালিত হয়। 

হাফলং প্রেস ক্লাব ও ডিমা হাসাও জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের উদ্যোগে এবং জেলা তথ্য ও জনসংযোগ বিভাগের সহযোগীতায় হাফলং লেডিস ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন কনফারেন্স হলে জাতীয় প্রেস দিবসের আয়োজন করা হয়।

জাতীয় প্রেস দিবসের অনুষ্ঠানে মুখ্য অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের যুগ্ম সঞ্চালক ডা: দীপালি বর্মণ। ডিমা হাসাও জার্নালিস্ট ইউনিয়নের সভাপতি সূর্য থাওসেনের পৌরহিত্যে অনুষ্ঠিত প্রেস দিবসের অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন হাফলং প্রেস ক্লাবের সম্পাদক বিপ্লব দেব। 

এবারের জাতীয় প্রেস দিবসের আলোচনার মূল বিষয়বস্তু ছিল ' কোভিড অতিমারীর সময় সংবাদ মাধ্যমের ভূমিকা এবং সংবাদ মাধ্যমের উপর তার প্রভাব ' ।

এদিনের প্রেস দিবসের অনুষ্ঠানে মূল বিষয়বস্তুর উপর সাংবাদিক সামসুল আলম, পঙ্কজকুমার দেব, সুখেন্দ্র ফংলো,এল কে হেংনা, নির্মল সিং প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 সাংবাদিকরা তাঁদের বক্তব্যে বিশেষ করে কোভিড অতিমারীতে সংবাদ মাধ্যমকে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয়েছে। সংবাদ প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়া ছাড়া একাংশরা চাকরি খোয়াতে হয়েছে। জেলা তথ্য ও জনসংযোগ আধিকারিক পূরবি ফংলো বলেন কোভিড পরিস্থিতি এখনও অব্যাহত আছে। 

তবে প্রথমাবস্থায় চিকিৎসক, প্রশাসনিক আধিকারিক থেকে পুলিশ এবং সাংবাদিকদের অনেক ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হয়েছে। অবশ্য ধীরে ধীরে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। তথাপি কোভিড সম্বন্ধীয় তথ্য শেয়ার করতে গিয়ে আমাদেরকে সজাগ হতে হয়েছে। এতে জেলা সদরের কর্মরত সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। 

তিনি বলেন আজ ডিজিটাল সভ্যতার দৌলতে মূহুর্তের মধ্যে পৃথিবীর এক প্রান্তের খবর অন্য প্রান্তে পৌঁছে যাচ্ছে যদিও কিন্তু ছাপা মাধ্যম অর্থাৎ খবরের কাগজের যাত্রা অব্যাহত আছে এবং থাকবে। 

পূরবি ফংলো সংবাদ মাধ্যমকে মায়ের সঙ্গে তুলনা করে বলেন সন্তানদের সযত্নে প্রতিপালন করতে মা যেমন পক্ষপাতিত্বের আশ্রয় নেয় না অনুরূপ সংবাদ মাধ্যমও নিরপেক্ষ ভূমিকা বজায় রেখে সমাজকে সজাগ করতে কাজ করছে।   

মুখ্য অতিথির বক্তব্যে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের যুগ্ম সঞ্চালক ডা: দীপালি বর্মণ মূল বিষয়বস্তুর উপর আলোকপাত করতে গিয়ে বলেন ' এখন পর্যন্ত পার্বত্য ডিমা হাসাও জেলায় ছাব্বিশ হাজার রেপিড এন্টিজেন টেস্ট হয়েছে। এরমধ্যে এক হাজার পজিটিভ। সুখবর হলো পার্বত্য জেলায় কোভিড সংক্রমণের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। 

তথাপি আমাদেরকে সজাগ এবং সতর্ক থাকতে হবে। বাজার হাটের অবস্থা দেখলে মনে হয় আমরা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছি। তবে এভাবে চললে যখন তখন পরিস্থিতি সিরিয়াস হয়ে উঠবে সন্দেহ নেই। তাই বাজার হাট বা জনবহুল এলাকায় মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক।'

 তিনি এদিন আরও বলেন যে জ্বর সর্দি কাশি কিছু দিন থাকলে অবশ্যই কোভিড পরীক্ষা করানো জরুরি। কারণ ইতিমধ্যে কোভিডের দ্বিতীয় তথা তৃতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ শুরু হয়েছে।এদিকে চিকিৎসকদের সদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ রয়েছে। ফলে কোভিড থেকে নিস্তার পেতে সতর্ক থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সাধারণ জনগণের মধ্যে সজাগতা আনতে সংবাদ মাধ্যমকেই বিশেষ ভূমিকা পালন করতে হবে। 

ধন্যবাদ সূচক বক্তব্য রাখেন প্রবীন সাংবাদিক লালকাম হেংনা।।।



Recent News

Available at

© 2019 - Maintained by EZEN Software & Technology Pvt. Ltd